এপ্রিল ১৫, ২০২৪ ১১:৪১ পূর্বাহ্ণ
এপ্রিল ১৫, ২০২৪ ১১:৪১ পূর্বাহ্ণ

বাংলাদেশের কাছে ২ হাজার কোটি টাকা পাওনা বিদেশি এয়ারলাইনসগুলোর

বাংলাদেশের কাছে ২ হাজার কোটি টাকা পাওনা বিদেশি এয়ারলাইনসগুলোর
বাংলাদেশের কাছে ২ হাজার কোটি টাকা পাওনা বিদেশি এয়ারলাইনসগুলোর। ছবি: সংগৃহীত

বাংলাদেশের কাছে বিশ্বের এয়ারলাইনসগুলোর ২১ কোটি ৪১ লাখ মার্কিন ডলার পাওনা রয়েছে বলে জানিয়েছে দ্য ইন্টারন্যাশনাল এয়ার ট্রান্সপোর্ট অ্যাসোসিয়েশন (আইএটিএ)। বাংলাদেশি মুদ্রায় যা ২ হাজার কোটি টাকার বেশি।

রোববার (৪ জুন) ইন্টারন্যাশনাল এয়ার ট্রান্সপোর্ট অ্যাসোসিয়েশন (আইএটিএ) তাদের ওয়েবসাইটে দেওয়া এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

সংস্থাটি জানিয়েছেন, ২০২২ সালের এপ্রিলের তুলনায় ২০২৩ সালের এপ্রিলে বিশ্বে বিমান খাতে আটকে রাখা তহবিলের হার ৪৭ শতাংশ বেড়েছে। ২০২২ সালের এপ্রিলে আটকে রাখা তহবিলের পরিমাণ ছিল ১৫৫ কোটি ডলার। ২০২৩ সালের এপ্রিলে তা বেড়ে হয়েছে ২২৭ কোটি ডলার। মাত্র পাঁচটি দেশ এই তহবিলের ৬৮ শতাংশ আটকে রেখেছে।

এয়ারলাইনসের অর্থ আটকা রয়েছে—বিশ্বের এমন শীর্ষ পাঁচটি দেশের নাম প্রকাশ করেছে আইএটিএ। বিশ্বজুড়ে যত পরিমাণ অর্থ আটকা রয়েছে তার ৬৮ শতাংশই ওই পাঁচ দেশে বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক এই সংস্থা। সবচেয়ে বেশি অর্থ আটকা পড়েছে নাইজেরিয়ায়—৮১ কোটি ২২ লাখ ডলার। দ্বিতীয় অবস্থানে বাংলাদেশ—২১ কোটি ৪১ লাখ ডলার।

আইএটিএ বলছে, বিশ্বের সরকারগুলোর কাছে বিপুল পরিমাণ পাওনা নিরবিচ্ছিন্ন উড়োজাহাজ সংযোগের ক্ষেত্রে বাধা তৈরি করছে। সংস্থাটির মহাপরিচালক উইলি ওয়ালশ বলেন, বকেয়া পাওনা না পেলে বাণিজ্যিক কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়।

এয়ারলাইনগুলোকে টিকিট বিক্রি, কার্গো স্পেস এবং অন্যান্য কর্মকাণ্ড থেকে উদ্ভূত এই অর্থ ফেরত পাঠাতে আইএটিএ সরকারগুলোকে আন্তর্জাতিক চুক্তি ও চুক্তির বাধ্যবাধকতা মেনে চলার অনুরোধ জানিয়েছে।