মে ২৪, ২০২৪

শুক্রবার ২৪ মে, ২০২৪

মে মাসেই আসছে কালবৈশাখী ও ঘূর্ণিঝড়, কবে জানাল আবহাওয়া অফিস

Cyclone
ছবি: সংগৃহীত

চলতি মে মাসে ৩ থেকে ৫ দিন বজ্র শিলাবৃষ্টিসহ হালকা ধরনের কালবৈশাখী ঝড় এবং ২ থেকে ৩ দিন বজ্র ও শিলাবৃষ্টিসহ মাঝারি থেকে প্রবল কালবৈশাখী ঝড়সহ বঙ্গোপসাগরে এক থেকে ২টি লঘুচাপ সৃষ্টি হতে পারে এবং এর মধ্য থেকে একটি এ মাসের মাঝামাঝি সময়ে নিম্নচাপ বা ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হতে পারে বলে আভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

গতকাল বৃহস্পতিবার আবহাওয়া বিভাগের ঝড় সতর্কীকরণ কেন্দ্র রাজধানীর ঢাকায় অনুষ্ঠিত বিশেষজ্ঞ কমিটির সভায় এই পূর্বাভাস দেয়া হয়েছে।

এতে সভাপতিত্ব করেন আবহাওয়া বিভাগের পরিচালক ও কমিটির চেয়ারম্যান মো. আজিজুর রহমান।

তাপপ্রবাহ নিয়ে পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, চলতি মে মাসে দেশের কোথাও কোথাও এক থেকে ৩টি মৃদু তাপপ্রবাহ (তাপমাত্রা ৩৬ থেকে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস) থেকে মাঝারি তাপপ্রবাহ (৩৮ থেকে ৪০ ডিগ্রি সে.) এবং এক থেকে ২টি তীব্র তাপপ্রবাহ (তাপমাত্রা ৪০ থেকে ৪২) বয়ে যেতে পারে। গত মাসের মতো এ মাসেও দিনের তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি থাকতে পারে।

আবহাওয়া বিভাগের দীর্ঘমেয়াদি পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, চলতি মে মাসে সামগ্রিকভাবে দেশে স্বাভাবিক বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। তবে বিশেষজ্ঞ কমিটির উক্ত সভায় পর্যালোচনায় জানা গেছে, গেল এপ্রিল মাসে (চৈত্র-বৈশাখ) সারা দেশে গড়ে মৌসুমের এ সময়ের স্বাভাবিকের চেয়ে গড়ে ৮১ শতাংশই কম বৃষ্টিপাত হয়েছে। আবার বিভাগ-জেলাওয়ারি হিসাবে বৃষ্টিপাতের ক্ষেত্রে অসঙ্গতি রয়েছে।

চলতি মে মাসে উজানে ভারতে ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে দেশের উত্তরাঞ্চল এবং উত্তর-পূর্বাঞ্চলের নদ-নদীসমূহের পানি দ্রুত বৃদ্ধি পেতে পারে এবং কতিপয় স্থানে বিপদসীমার কাছাকাছি প্রবাহিত হতে পারে।

অধিদপ্তরের পরিচালক মো. আজিজুর রহমানের দেওয়া পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, মে মাসে তাপপ্রবাহ, বৃষ্টি, শিলা বৃষ্টি, নিম্নচাপ, ঘূর্ণিঝড় ও কালবৈশাখী সবকিছুরই সম্ভাবনা রয়েছে। তবে তাপপ্রবাহ এপ্রিলের মতো অবস্থায় যাবে না। এ মাসে এত দীর্ঘ সময় ধরে তাপপ্রবাহ থাকবে না। তাপমাত্রা এপ্রিলের চেয়ে কিছুটা কম থাকবে।

আরেক পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, আগামী ১০ মের পর থেকে বৃষ্টিপাতের ফলে সারা দেশে তাপমাত্রা কমার সম্ভাবনা রয়েছে। পরবর্তী ৫ থেকে ৬ দিন দমকা হাওয়া, ঝড়ো বাতাস ও বজ্র ঝড়সহ বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। এরপর আবারও আসতে পারে তাপপ্রবাহ।

আজ শুক্রবার (৩মে) সন্ধ্যাসহ পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার (তিন দিন) আবহাওয়া পূর্বাভাসে আবহাওয়াবিদ মো. ওমর ফারুক জানান, চট্টগ্রাম বিভাগের অনেক জায়গায় এবং ঢাকা, ময়মনসিংহ, বরিশাল ও সিলেট বিভাগের দু’এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা, ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি, বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্ত শিলাবৃষ্টি হতে পারে।

এছাড়া দেশের অন্যত্র অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে।

যশোর, চুয়াডাঙ্গা, পাবনা, কুষ্টিয়া ও রাজশাহী জেলাসমূহের উপর দিয়ে তীব্র তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। এছাড়া দেশের অন্যত্র মৃদু থেকে মাঝারী তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। এই তাপপ্রবাহ কিছু জায়গায় কমে আসতে পারে। সারা দেশে দিনের তাপমাত্রা কিছুটা হ্রাস এবং রাতের তাপমাত্রা এক থেকে ২ ডিগ্রি সে. হ্রাস পেতে পারে।

আগামীকাল শনিবার (৪মে) সন্ধ্যা পর্যন্ত আবহাওয়া পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের দু’এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা, ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি, বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্ত শিলাবৃষ্টি হতে পারে।

এছাড়া দেশের অন্যত্র অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে। চলমান তাপপ্রবাহ অব্যাহত থাকতে পারে। সারাদেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা কিছুটা বৃদ্ধি পেতে পারে।

আগামী রোববার (৫মে) সন্ধ্যা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়া পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং ঢাকা, রংপুর ও বরিশাল বিভাগের দু’এক জায়গায় অস্থায়ী দমকা, ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি, বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্ত শিলাবৃষ্টি হতে পারে।

দেশের অন্যত্র অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে। সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা হ্রাস ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

এর আগে গতকাল বুধবার চট্টগ্রামে সকালে হঠাৎ আকাশ কালো মেঘে ছেয়ে হিমেল দমকা হাওয়ার সাথে ঘণ্টাখানেক বৃষ্টিপাত হয়।

এ সময়ে অনেকেই রাস্তাঘাটে-মাঠে বৃষ্টিতে ভিজে স্বস্তি প্রকাশ করেন। ১ মাস টানা উচ্চতাপ ও খরার পর চট্টগ্রামে ক্ষণিকের বৃষ্টিতে সাময়িক স্বস্তি দেখা দেয়।