মে ২৭, ২০২৪

সোমবার ২৭ মে, ২০২৪

ফের কল রেকর্ডের সুবিধা দিচ্ছে ‘ট্রু কলার’ অ্যাপ

ফের কল রেকর্ডের সুবিধা দিচ্ছে ‘ট্রু কলার’ অ্যাপ
ফের কল রেকর্ডের সুবিধা দিচ্ছে ‘ট্রু কলার’ অ্যাপ। ছবি: সংগৃহীত।

ট্রু কলার বাংলাদেশ সহ পুরো বিশ্বেই পরিচিত একটি অ্যাপ। ট্রুকলারের সবচেয়ে ব্যবহৃত ফিচার হচ্ছে এর কলার আইডি সেবা। এক সময় এ অ্যাপে কল রেকর্ড করা গেলেও মাঝে তা বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। এবার ফের ট্রু কলারে কল রেকর্ডের সুযোগ চালু হয়েছে। পুনরায় কল রেকর্ডের সুবিধা চালু হওয়ায় পরিচিত বা অপরিচিত যেকোনো ব্যক্তি কল করলে তা রেকর্ড করে রাখা যাবে।

নতুন এ সুবিধা চালুর জন্য নিজেদের অ্যাপের ডায়াল বক্সের মধ্যে রেকর্ড বাটন যুক্ত করেছে ট্রুকলার। ফলে নির্দিষ্ট নম্বরে কল করা বা কল রিসিভের সময় রেকর্ড বাটনটিতে ক্লিক করলেই কথোপকথন রেকর্ড হতে থাকবে। রেকর্ড করা তথ্য ট্রু কলারের সার্ভারের বদলে ফোনেই সংরক্ষণ করা হবে। ফলে ব্যবহারকারীদের গুরুত্বপূর্ণ সব তথ্য সুরক্ষিত থাকবে।

তবে এখনই ট্রু কলারের সব ব্যবহারকারী কল রেকর্ডের সুযোগ পাবেন না। আপাতত প্রিমিয়াম গ্রাহকরা প্রতি মাসে চার ডলার খরচ করে এ সুবিধা পাবেন। অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস অপারেটিং সিস্টেমে চলা যেকোনো মডেলের স্মার্টফোনেই কল রেকর্ডিংয়ের সুবিধা পাওয়া যাবে।

অ্যান্ড্রয়েডে অপারেটিং সিস্টেমের ক্ষেত্রে ব্যবহারকারীরা সরাসরি কল রেকর্ডিং শুরু করতে ট্রুকলারের ডায়ালার ব্যবহার করতে পারেন। যদি তারা অন্য কোনো ডায়ালার ব্যবহার করে, তাহলে ট্রু কলার একটি ভিজিবল রেকর্ডিং বাটন দেখাবে। সেই বাটনটিতে ক্লিক করলেই কথোপকথন রেকর্ড হতে থাকবে।

তবে আইওএস অপারেটিং সিস্টেমের ক্ষেত্রে প্রক্রিয়াটি একটু জটিল। কল দেওয়া এবং রিসিভের সময় ট্রুকলার অ্যাপের মাধ্যমে ব্যবহারকারীদের একটি রেকর্ডিং লাইনে ফোন করে এবং কলগুলোকে একত্রিত করতে হবে। তবে এক্ষেত্রে ফোনের অপর পাশের ব্যক্তি কল রেকর্ড হওয়ার নির্দেশ হিসেবে একটি বীপ শুনতে পাবেন।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে প্রিমিয়াম অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীদের জন্য প্রথম কল রেকর্ড সুবিধা চালু করে ট্রু কলার। ২০২১ সালে অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীদের জন্য এ সুবিধা উন্মুক্ত করা হয়। গুগল নিজেদের এপিআই (অ্যাপ্লিকেশন প্রোগ্রামিং ইন্টারফেস) ব্যবহারের নীতিমালা পরিবর্তন করায় গত বছর ট্রুকলার অ্যাপে এ সুবিধা বন্ধ হয়ে যায়।