মে ২২, ২০২৪

বুধবার ২২ মে, ২০২৪

প্রভার সাংবাদিক ভীতি এবং ‘গায়ে হাত’ দেওয়ার অভিযোগ

প্রভার সাংবাদিক ভীতি এবং ‘গায়ে হাত’ দেওয়ার অভিযোগ।
প্রভার সাংবাদিক ভীতি এবং ‘গায়ে হাত’ দেওয়ার অভিযোগ।

অভিনেত্রী সাদিয়া জাহান প্রভার ২০১০ সালে যে স্ক্যান্ডাল ভাইরাল হয়েছিল, সেই ভিডিও’র জন্য তাকে লিগ্যাল নোটিশ পাঠিয়েছেন জয়নাল আবেদীন মাযহারী নামে কুমিল্লার এক আইনজীবী। তারই পরিপ্রেক্ষিতে শনিবার (১ এপ্রিল) সন্ধ্যায় অভিনয়শিল্পী সংঘের ইফতার পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে হাজির হন প্রভা। তার জীবনের ঘটে যাওয়া অপ্রিতীকর কয়েকটি বিষয় নিয়ে কথা বলেন তিনি। অনেকটা বাধ্য হয়েই তিনি সাংবাদিক ভীতি এবং ‘গায়ে হাত’ দেওয়ার অভিযোগ করেন।

অভিনেত্রী বলেন, ‘ছোটবেলায় পড়ে গিয়ে ব্যথা পেলে ভয় পেতাম, কারণ আম্মু জানলে বকা দেবে। এখন ফিজিক্যালি অ্যাবিউজড হলেও হজম করে ফেলি। কারণ, তারচেয়ে বড় ভয় হয় যদি জার্নালিস্ট জানতে পারে- তাহলে কী হবে! আমার জীবনে যারা (প্রেমিক) এসেছে, প্রত্যেকে যাওয়ার সময় একটা ব্লেম গেম খেলেছে। এটার মধ্যে মেন্টালি টর্চার হয়েছি, কিন্তু কাউকে কিছু মুখফুটে বলতে পারিনি। বরাবরই মনে হয়েছে বললেই যদি জার্নালিস্ট যেনে যায়? ডিভোর্সের পেপার যখন ফাইল করি- নিয়ম অনুযায়ী আমার কিছু পাওনা থাকে। কিন্তু সেটা নিয়ে কথা বলতে ভয় করে, যদি সেটা খবরে চলে আসে। আমি সবকিছুই করতে পারতাম- সাংবাদিকরা যদি আমাকে সাপোর্ট করতো।’

সাংবাদিকদের অভিযোগ করে প্রভা বলেন, ‘কিছুদিন আগে আমার ভেরিফায়েড পেজ থেকে জানিয়েছি- কথা বলা ছাড়া আমার কিছু পাবলিশ করবেন না। যেমন কদিন আগে- রোজায় নরম ভাষায় কিছু একটা লিখলাম। পরদিন নিউজ আসলো- অবশেষে ক্ষমা চাইলেন প্রভা! বলেন তো কিসের জন্য ক্ষমা চাইবো আমি? অনেকে বলে আমি অ্যাটেনশন সিকার, তাই এসব পোস্ট দিচ্ছি। অথচ আমি অ্যাটেনশনই চাই না খবরের ভয়ে। এতো অন্যায় আমার সঙ্গে, অথচ আমি প্রতিবাদ জানাতে পারি না- ভয় সাংবাদিকরা লিখবে।’

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যেকোনো পোস্ট দিলেই একাটা শ্রেণি আছে যারা আমার পেছনে লেগেই থাকে, আমি নাকি এগুলো অ্যাটেনশন পাওয়ার জন্য করি। এরপর আমি আমার সব ছবি সড়িয়ে ফেললাম। আসলে আমার উপর আল্লাহর রহমত আছে যে- আমি মেন্টালি ভেঙে পড়িনি। আল্লাহর কাছে লাখ লাখ শুকরিয়া। এটাকে আল্লাহ হেদায়েত প্রাপ্ত বলতে পারি।’

এরপর প্রভা উপস্থিত সাংবাদিকদের ভাই সম্বোধন করেন। অনুরোধ করেন, কেউ যদি তার নামে সোশ্যাল হ্যান্ডেলে বা খবরে বাজে কথা লেখেন, তবে যেন সেটার প্রতিবাদ করেন ভাই হিসেবে।

শুটিং শেষ করে উবার নিয়েছি। একজন সাংবাদিকও আমার সঙ্গে উঠলেন। ভাই মানুষ। বসলেন পাশে। বললেন, এয়ারপোর্টে নামায়ে দিতে। তো সিটে বসে কথা বলতে বলতে সে আমার পায়ে হাত রাখলো! বললাম, ‘তুমি আমার গায়ে হাত দিলা কেন? আমার কোনও কলিগও তো এভাবে হাত দেয় না।’ এরপর সে সরি বলেছে। নামকরা সাংবাদিক। আমি জানি, সে সরি বললেও তার ভুল রিয়েলাইজ করেনাই। সে তার ক্ষোভ প্রকাশ করেছে অন্যভাবে পরে। কিভাবে তাহলে সাংবাদিকদের সঙ্গে আন্তরিক হবো?’’

এসময় তার পাশে উপস্থিত ছিলেন সংঘের সভাপতি আহসান হাবিব নাসিম, জ্যেষ্ঠ অভিনেত্রী ডলি জহুর, অভিনেতা সাজ খাদেমসহ অনেকেই।